Browsing Category

ফ্যাক্ট অ্যান্ড স্ট্যাট

বদ্রিনাথ-কোহলি ও চাকরি খোয়ানো ভেংসরকার

উপমহাদেশের ক্রিকেটে স্বজনপ্রীতি নতুন কোনো ব্যাপার নয়। যুগ যুগ ধরে এই ব্যাপারটা চলে এসেছে। আর বিশেষ করে ভারতীয় ক্রিকেটে এর প্রভাব বেশি। সাবেক ভারতীয় অধিনায়ক দিলীপ ভেংসরকার ২০১৮ সালে মুখ খুলেছিলেন এই স্বজনপ্রীতির প্রসঙ্গে। আর তাতেই বের হয়ে…

আইপিএল থেকে রাজনীতির ময়দানে

ক্রিকেটারদের জীবনটা কেবল বাইশ গজেই সীমাবদ্ধ নয়। বিশেষ করে খেলোয়াড়ী জীবন শেষ করার পর একেকজনের জীবন একেক দিনে মোড় নেই। অনেক রাজনীতির মাঠেও পা রাখেন।

কপিল-দাউদ ও সেকালের শারজাহ

শারজার স্টেডিয়ামেও ডনের হাত বেশ ভালই প্রভাব বিস্তার করেছিল। হয়তো সেই উপহার ছিল ভারতীয় ক্রিকেটের অন্দরমহলে প্রবেশের মুখে এক উপঢৌকন। মাঠে প্রায়ই তার সাথে ফিল্মস্টারদেরও দেখা যেত। এর মধ্যে অনিল কাপুর কিংবা ‘রাম তেরি গাঙ্গা ম্যাইলি’ খ্যাত…

‘তোমার ওপর ফালতুই নষ্ট করলাম ওটা!’

ব্যাট হাতে স্ট্রাইক নেওয়ার জন্যে তৈরি কৃষ্ণমাচারি শ্রীকান্ত নামের মারকাটারি ব্যাটসম্যান। যারা ওনার খেলার সঙ্গে পরিচিত নন তাঁদের জানিয়ে রাখি উনি মোটামুটি বীরেন্দ্র শেবাগের ছোট সংস্করণ – বল দেখলেই মার লাগাও – মোটামুটি এই ছিল ওনার ক্রিকেট…

শচীন মাস্টারক্লাস: নিষ্ঠুরতাই যখন সুন্দর

বিশ্বকাপে শচীনের মোট ছয়টা সেঞ্চুরি, অথচ ‘বিশ্বকাপের শচীন’ প্রসঙ্গ এলেই সবার প্রথমে মাথায় আসে এই ৯৮ রানের ইনিংসটার কথা। পাকিস্তানি বোলিং আক্রমণকে দুমড়ে-মুচড়ে দেয়া শচীন সেদিন এতটাই বিধ্বংসী মুডে ছিলেন, যা খেলা শুরুর আগে কেউ ঘুণাক্ষরেও কল্পনা…

বাজিগর তো এদেরই বলে!

ভারতের জয় আর হারের মাঝে আবারো সেই মিসবাহ, প্রথম ম্যাচের মতোই, টেনশন টেনশন! ডাগআউটে দেখা গেল দু’দলের খেলোয়াড় আর সাপোর্ট স্টাফ দের প্রার্থনায় মগ্ন, চমক তখনো বাকি, শেষ ওভারে পাকিস্তানের জিততে ১৩ রান বাকি ধোনি বল তুলে দিলেন অনামী যোগিন্দর…

ওয়ার্ন-মুরালি বিতর্ক ও সেরার লড়াই

১৩৩ টেস্টে মুরালির উইকেটসংখ্যা ৮০০, যেখানে ১৪৫ টেস্টে ওয়ার্নের শিকার ৭০৮। মুরালির বোলিং গড় ২২.৭২, ওয়ার্নের ২৫.৪১। মুরালির স্ট্রাইক রেট ৫৫, ওয়ার্নের ৫৭। মুরালি ইনিংসে পাঁচ উইকেট নিয়েছে ৬৭ বার, ওয়ার্ন ৩৭ বার! মুরালি ম্যাচে দশ উইকেট নিয়েছে ২২…

পাঁচ ‘হাঁস’ নিয়ে হাঁসফাঁস

পুরো চিত্রটা বুঝতে হলে যেতে হবে আরেকটু পেছনে। সেটি ১৯৯৯-২০০০ মৌসুমে ভারতের অস্ট্রেলিয়া সফর। সিরিজের প্রথম টেস্ট অ্যাডিলেইডে। প্রথম ইনিংসে ১৯ রান করেছিলেন আগারকার। দ্বিতীয় ইনিংস থেকেই শুরু তার দুঃস্বপ্ন যাত্রার। দীর্ঘ ও বিব্রতকর যাত্রা!

একটি ফোন কল ও একজন এনামুল জুনিয়র

সেদিন এনামুল হক জুনিয়র অধিনায়কের কথা রেখেছেন; রেখেছিলেন আগেরদিন রাতে তাঁর মায়ের বলা কথা। দেশকে একটা টেস্ট জয় উপহার দিতে তিনি নিজেকে উজাড় করে দিয়েছিলেন মাঠে।

খবরদার! কেউ উদযাপন করবে না!

ভারত-অস্ট্রেলিয়া দ্বৈরথ অনেক পুরোনো। ভারতীয় অনেক ক্রিকেটার তাঁদের প্রিয় প্রতিপক্ষ হিসেবে অস্ট্রেলিয়ার নাম নেন, তাদের শক্তিমত্তার জন্য। ২০০৮ সালেও ভারত-অস্ট্রেলিয়া খেলাটি নিয়েও কম উত্তেজনা ছিল না।