শেষ ইনিংসে বাজির ঘোড়া

এছাড়া এই ব্যাটিংটা যদি করতে হয় চতুর্থ ইনিংসে তাহলে তো সেই পরীক্ষা মাত্রা ছাড়ায়। টানা ৩-৪ দিন খেলার পর স্বভাবিক ভাবেই পিচ অনেক বেশি ক্লান্ত হয়ে পড়ে। ফলে ব্যাটসম্যানদের জন্য কাজটা অনেক বেশি কঠিন হয়ে যায়। ফলে চতুর্থ ইনিংসে সেঞ্চুরির দেখা পাওয়াটা যেকোন ব্যাটসম্যানের জন্য বিশাল পর্জন। টেস্ট ক্রিকেটে এই কাজটা সবচেয়ে বেশিবার যারা করতে পেরেছেন তাঁদের নিয়েই এই তালিকা।

টেস্ট ক্রিকেট ক্রিকেটারদের জন্য সবচেয়ে বড় পরীক্ষার জায়গা। একজন ক্রিকেটারের টেকনিক, অধ্যাবসায়, নিয়ন্ত্রণ সব ফুটে উঠে টেস্ট ক্রিকেটের মাধ্যমে। এছাড়া প্রচন্ড ধৈর্য্যের পরীক্ষাও দিতে হয় এই ফরম্যাটে। বিশেষ করে ব্যাটসম্যানদের লম্বা সময় বাইশ গজ আঁকড়ে থাকতে হয়। কঠিন পথ পারি দিয়ে রান করে যেতে হয়।

এছাড়া এই ব্যাটিংটা যদি করতে হয় চতুর্থ ইনিংসে তাহলে তো সেই পরীক্ষা মাত্রা ছাড়ায়। টানা ৩-৪ দিন খেলার পর স্বভাবিক ভাবেই পিচ অনেক বেশি ক্লান্ত হয়ে পড়ে। ফলে ব্যাটসম্যানদের জন্য কাজটা অনেক বেশি কঠিন হয়ে যায়। ফলে চতুর্থ ইনিংসে সেঞ্চুরির দেখা পাওয়াটা যেকোন ব্যাটসম্যানের জন্য বিশাল পর্জন। টেস্ট ক্রিকেটে এই কাজটা সবচেয়ে বেশিবার যারা করতে পেরেছেন তাঁদের নিয়েই এই তালিকা।

  • গ্রায়েম স্মিথ (দক্ষিণ আফ্রিকা)

মাত্র ২২ বছর বয়সেই দক্ষিণ আফ্রিকার টেস্ট অধিনায়ক হয়েছিলেন গ্রায়েম স্মিথ। অধিনায়ক হিসেবে যতটা দুর্দান্ত ছিলেন ব্যাটসম্যান হিসেবেও ততটাই সফল। দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সফল ব্যাটসম্যানদের একজন গ্রায়াম স্মিথ। টেস্টের চতুর্থ ইনিংসে সেঞ্চুরি করার তালিকাতেও আছেন তিনি।

দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে মোট ১১৭ টি টেস্ট ম্যাচ খেলেছিলেন এই ক্রিকেটার। সেখানে ৫০ ছুঁই ছুঁই গড়ে তাঁর ঝুলিতে আছে ৯২৬৫ রান। সবমিলিয়ে টেস্ট ক্রিকেটে গ্রায়েম স্মিথের ঝুলিতে আছে ২৭ টি টেস্ট সেঞ্চুরি। তবে চতুর্থ ইনিংসে এই ব্যাটসম্যান মোট চারবার সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন।

  • রামনারেশ সারওয়ান (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)

রামনারেশ সারওয়ান ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে এক যুগেরও বেশি সময় আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলেছেন। তবে টেস্ট ক্রিকেটই সবচেয়ে বেশি খেলেছেন এই ব্যাটসম্যান। ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে মোট ৮৭ টি টেস্ট খেলে তাঁর ঝুলিতে আছে ৫৮৪২ রান। ব্যাটিং করেছেন প্রায় ৪০ গড়ে।

চতুর্থ ইনিংসে দারুণ সব ইনিংস খেলেছেন এই ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যান। টেস্টের শেষ ইনিংসে সারওয়ানও করেছেন মোট চারটি সেঞ্চুরি। এছাড়া টেস্ট ক্রিকেটে সবমিলিয়ে তাঁর ঝুলিতে আছে ১৫ টি সেঞ্চুরি ও ৩১ টি হাফ সেঞ্চুরি।

  • রিকি পন্টিং (অস্ট্রেলিয়া)

অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেট ইতিহাসের সবচেয়ে সফল ক্রিকেটারদের একজন রিকি পন্টিং। ব্যাটসম্যান ও অধিনায়ক দুই ভূমিকাতেই আছে অনেক অনেক অর্জন। টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসেও সফলতম ব্যাটসম্যান রিকি পন্টিং।

অজিদের হয়ে মোট ১৬৮ টি টেস্ট খেলেছেন কিংবদন্তি এই ক্রিকেটার। সেখানে ব্যাটিং করেছেন ৫১.৮৫ গড়ে। সবমিলিয়ে টেস্ট ক্রিকেটে তাঁর রান আছে ১৩৩৭৮। চতুর্থ ইনিংসে এই ব্যাটসম্যানের ঝুলিতেও আছে চারটি সেঞ্চুরি। তবে সবমিলিয়ে টেস্ট ক্রিকেটে রিকি পন্টিং ৪১ বার সেঞ্চুরি করেছেন।

  • সুনীল গাভাস্কার (ভারত)

ভারতের ক্রিকেট ইতিহাসে এক কিংবদন্তি সুনীল গাভাস্কার। ভারতের ক্রিকেটে ব্যাটসম্যানশিপের সংজ্ঞাই বদলে দিয়েছিলেন তিনি। দেশটির হয়ে টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম ১০ হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করেন গাভাস্কার।

এছাড়া ভারতের হয়ে মোট ১২৫ টি টেস্ট খেললেন তিনি। সেখানে ৫১.১২ ব্যাটিং গড়ে তিনি করেছেন ১০১২২ রান। মজার ব্যাপার হচ্ছে চতুর্থ ইনিংসে গাভাস্কার ব্যাটিং করেছেন ৫৮.২৫ গড়ে। ৩৩ ইনিংসে তাঁর ঝুলিতে আছে ১৩৯৮ রান। এছাড়া চতুর্থ ইনিংসে তিনিও করেছেন চারটি সেঞ্চুরি।

  • ইউনুস খান (পাকিস্তান)

টেস্ট ক্রিকেটে পাকিস্তানের অন্যতম সফল ব্যাটসম্যান ইউনুস খান। প্রায় দুই দশক দেশটির হয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলেছেন এই ব্যাটসম্যান। টেস্টে ১০ হাজার রান করার রেকর্ডও আছে তাঁর। এছাড়া চতুর্থ ইনিংসে সবচেয়ে বেশি সেঞ্চুরি করার কীর্তিও তাঁর।

পাকিস্তানের হয়ে মোট ১১৮ টি টেস্ট খেলেছেন ইউনুস খান। সেখানে ৫২.০৫ গড়ে করেছেন ১০০৯৯ রান। এছাড়া টেস্ট সবমিলিয়ে তাঁর ঝুলিতে আছে ৩৪ টি সেঞ্চুরি। এছাড়া শুধু চতুর্থ ইনিংসে করেছেন ৫ টি সেঞ্চুরি।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

আরও পড়ুন
মন্তব্যসমূহ
Loading...