তীব্র খরায় এক পশলা বৃষ্টি

তীব্র খরায় এক পশলা বৃষ্টি কৃষকের জন্য যেমন উচ্ছ্বাস বয়ে আনে তেমনি রানখরায় থাকা সাব্বির রহমান রুম্মনের জন্য উচ্ছ্বাসের উপলক্ষ হয়ে এসেছে একটি সেঞ্চুরি। অবশ্য দীর্ঘদিন পর রান পাওয়া সাব্বিরের জন্য যতটা না আনন্দের তার চেয়ে বেশি স্বস্তির।

তীব্র খরায় এক পশলা বৃষ্টি কৃষকের জন্য যেমন উচ্ছ্বাস বয়ে আনে তেমনি রানখরায় থাকা সাব্বির রহমান রুম্মনের জন্য উচ্ছ্বাসের উপলক্ষ হয়ে এসেছে একটি সেঞ্চুরি। অবশ্য দীর্ঘদিন পর রান পাওয়া সাব্বিরের জন্য যতটা না আনন্দের তার চেয়ে বেশি স্বস্তির।

এবারের ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগে এনামুল হক বিজয়, নাঈম ইসলামদের রীতিমতো ব্যাটে রান ফোয়ারা সৃষ্টি হয়েছে। দুইজনই ইতোমধ্যে করেছেন প্রায় ৮০০ এর মত রান। এক হাজার রানের মাইলফলক ছোঁয়ার সুযোগ-ও রয়েছে তাঁদের সামনে।

অথচ ঠিক বিপরীত চিত্র সাব্বির রহমানের ব্যাটে। গ্রুপ পর্বে ব্যাট হাতে রান খরায় ভুগছিলেন সাব্বির রহমান। চলমান ঢাকা প্রিমিয়ার লীগের গ্রুপ পর্বে একটি পঞ্চাশোর্ধ ইনিংস খেলতে পারেননি তিনি। গ্রুপ পর্বে ব্রাদার্স ইউনিয়নের বিপক্ষে ৪৬ রানের ইনিংসটিই ছিল সর্বোচ্চ। সব মিলিয়ে গ্রুপ পর্বে ৯ ইনিংসে তার সংগ্রহ ছিল ২০০। গড়টা ছিল বিশের ঘরে, মাত্র ২৫!

তবে সুপার লিগ শুরু হতেই বদলে গিয়েছে দৃশ্যপট। শুধু ফিফটি নয়, দেখা পেয়েছেন তিন অঙ্কের ম্যাজিক্যাল ফিগারের। রূপগঞ্জ ডার্বিতে রূপগঞ্জ টাইগার্সের বিপক্ষে ১১১ বল খেলে করেছেন ১২৫ রান।

লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেট ক্যারিয়ারে ১৫৮ ইনিংসে সাব্বির রহমানের চতুর্থ সেঞ্চুরি এটি। এর আগে ২০১০ সালে খুলনা বিভাগের বিপক্ষে ১১২ বলে করেছিলেন ১১২ রান। অর্ধযুগ পর ২০১৬ সালে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের বিপক্ষে পেয়েছিলেন নিজের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। ৯৭ বলে বরাবর ১০০ রান করেছিলেন সেদিন।

সর্বশেষ সেঞ্চুরি টি অবশ্য জাতীয় দলের হয়ে পেয়েছিলেন। নিউজিল্যান্ডের মাটিতে তাদের বিপক্ষে ২০১৯ সালের ২০শে ফেব্রুয়ারিতে ১০২ বলে ১১০ রান করেছিলেন সাব্বির।

জাতীয় দলের হয়ে সেঞ্চুরি করেছিলেন ছয় নাম্বারে ব্যাট করতে নেমে কিন্তু লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে তার বাকি তিন সেঞ্চুরিই এসেছে তিন নম্বর পজিশনে।

মজার ব্যাপার এবারের লিগের প্রথম ৯ ইনিংসের একটিতেও তিন নম্বরে ব্যাট করেননি সাব্বির। ৮ ইনিংসেই মিডল অর্ডারে ব্যাট করেছিলেন। আর অন্যটিতে ইনিংসের শুরুতে। আজকে প্রথমবার নিজের প্রিয় তিন নম্বর পজিশনে নেমেছেন, করেছেন সেঞ্চুরি।

অভিষেকের পর থেকেই সাব্বির রহমান’কে ভাবা হতো দেশের ক্রিকেটের ভবিষ্যত তারকাদের একজন। ফিনিশারের ভূমিকায় ছিলেন দুর্দান্ত। এরপর অবশ্য তিন নম্বর পজিশনেও সুযোগ পেয়েছিলেন ব্যাট করার। ২০১৫ এবং ২০১৯ সালে বিশ্বকাপের মত গুরুত্বপূর্ণ টুর্নামেন্টে-ও খেলেছিলেন সাব্বির।

কিন্তু ব্যাট হাতে ধারাবাহিকতা ছিল না কখনোই। অফ ফর্মের কারনে দল থেকে বাদ পড়েছিলেন ২০১৯ বিশ্বকাপের পরে। এরপর ঘরোয়া ক্রিকেটেও ম্লান ছিল সাব্বিরের ব্যাট। সবমিলিয়ে উজ্জ্বল দিনের সম্ভবনা দেখিয়ে মেঘের আড়ালে চলে গিয়েছেন সাব্বির।

এখন অবশ্য ফর্মে ফেরার ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি। অনেক ব্যাটসম্যানই তো দীর্ঘ অফ ফর্মের একটি বড় ইনিংস খেলে নতুন করে শুরু করেন। সাব্বির রহমান নিজেও হয়তো সে কথা জানেন। এমন ইনিংস ব্যাটসম্যান সাব্বিরকে আরো আত্মবিশ্বাসী করবে, হয়তো তিনি ফিরবেন স্বরূপে।

বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফি মুর্তজার সমর্থন সাব্বির বেশ ভাল ভাবেই পেয়ে আসছেন। এবার তো সাব্বিরের দল লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের অধিনায়কত্বের দায়িত্বে ম্যাশ। সাব্বিরের মেন্টরের দায়িত্ব হয়তো তিনি নিজেই পালন করছেন।


এখন দেখার বিষয়, সাব্বির রহমান ধারাবাহিক হয়ে উঠতে পারেন কিনা। এখনো তাকে নিয়ে বড় স্বপ্ন দেখে ভক্ত সমর্থকেরা, সাব্বির নিজেও হয়তো দেখেন। ব্যাট হাতে জ্বলে উঠে সাব্বির পারবেন তো সেই স্বপ্ন পূরন করতে?

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

আরও পড়ুন
মন্তব্যসমূহ
Loading...