Browsing Category

ভিন্ন চোখ

পাশ্চাত্যের আভিজাত্যে ক্যালিপসোর ছন্দ

পেস বোলিংয়ের বিপক্ষে গ্রিনিজ ছিলেন বরাবরই স্বচ্ছন্দ এবং আত্মবিশ্বাসী। বিশেষত নতুন বলের সুইং সামলানোয় তাঁর ছিল অসামান্য দক্ষতা। বলের উপর তীক্ষ্ণ দৃষ্টি রেখে যতটা সম্ভব সোজা ব্যাটে খেলতেন। পেসারদের বিপক্ষে গ্রিনিজের খেলা কপিবুক স্ট্রেট…

হ্যান্ড অব গড

অধিনায়ক গুণ্ডাপ্পা বিশ্বনাথ বোলিংয়ে আনলেন ক্যারিবিয়ান উইলো সম্রাটের শ্রেষ্ঠ ভারতীয় খাদককে। ঠিক সেইমুহুর্তে পিছনে ফিরে উইকেটরক্ষক সুরিন্দরখান্নাকে ব্যাটসম্যানটি বলেছিল – ‘What has he been brought on for?’ বলা বাহুল্য বরাবরের মতো সেবারেও…

জাম্বো এক যোদ্ধার নাম

ভাঙা চোয়াল, শানিত তরবারির ন‍্যায় চকচকে একজোড়া প্রত‍্যয়ী চোখ নিয়ে বোলিং প্রান্ত থেকে ছুটে আসছেন ব‍্যাটসম‍্যানের দিকে। বজ্রকঠিন লম্বা হাত থেকে বেরোলো তীক্ষ্ণ, বিষাক্ত, নিজ লক্ষ্যে অবিচল তীর প্রত‍্যেক বারের মতোইভ ২২ গজে পড়তেই বল নিজের আচরণ…

ডি সিলভা মানেই পাগলামি!

মাঠে তাঁর ডাক নাম ছিল ম্যাড ম্যাক্স। সেট হয়ে যাওয়ার পরেও হুট হাট শট খেলে আউট হয়ে যাওয়ার জন্যেই এই নাম ছিল। অরবিন্দ ডি সিলভা মানেই ছিল পাগলামি। ক্যারিয়ারের প্রথম ১০০ টি ওয়ানডে শেষে তাই নামের পাশে মাত্র ২৮.৪৩ গড়ে রান ২৫৩০। তবে একটা সময়ে পরিণত…

তাঁরাও যদি খেলতেন আইপিএল!

কুড়ি বিশের ক্রিকেটে এক দারুণ আইপিএলের দল বানানোর চেষ্টা করা যাক কিছু সাবেকদের নিয়ে, যাঁরা কিনা আজকের দিনের যেকোনো আইপিএলের দলকেই মাঠে টেক্কা দিতে পারেন। আইপিএলের নিয়ম অনুযায়ী দলে সাত জন ভারতীয় ও চারজন বিদেশির সমন্বয়ে এই দল বানানোর…

বর্ণবাদ-উমহাদেশ ও ক্রিকেটার পালওয়ানকার

তিনি ছোটবেলা থেকেই তাঁর ভাই শিভরামের সাথে তিনি পুনের একটি ক্লাবে ক্রিকেট খেলতেন ব্রিটিশ সৈনিকদের ফেলে দেয়া সরঞ্জাম দিয়ে । চামারের ছেলে হয়ে রাজার খেলা খেলে দেখানো তখন সাহসের ব্যাপার ছিল বইকী!

দ্য গ্রেট ইন্ডিয়ান ওয়াল

স্পিডস্টার শোয়েব আখতার একটা কথা বলেছিলেন, ‘যদিও, শচিন গ্রেট ব্যাটসম্যান, তারপরও আমার কাছে রাহুলকে বেশি শক্ত আর সলিড ব্যাটসম্যান মনে হয়। ওর ডিফেন্স খুব সলিড, অন্যদের চেয়ে শট কম খেলে। যে শট কম খেরে তাকে আউট করা কঠিন, কারণ শট কম খেলে বলে তার…

একালের অতিকায় মূর্তি

যারা ক্রিকেট ভালবাসে, তাঁরা গতির উদ্দামতা নয়, নীরবতার গভীরতা দেখে আনন্দ পায়। তাঁদের জন্য ক্যালিস সবসময় ‘না ভুলতে পারা সৌরভ’ ছড়িয়ে দিয়েছেন যাতে সব সময় মন ভরে সুবাস নেওয়া গেছে। তিনি হলেন আধুনিক ক্রিকেটের অতিকায় মূর্তি, একালের ক্রিকেট…

ভয়ংকর সুন্দর

গতিময় ফাস্ট বোলিংয়ের এক ‘ভয়ংকর সুন্দর’ প্রদর্শনী দু’চোখ ভরে অবলোকন করল পুরো ক্রিকেট বিশ্ব; মাত্র ৫৭ রানে ৯ উইকেটের ‘বিস্ফোরক’ এক স্পেলে প্রোটিয়া ব্যাটিং লাইনআপ গুড়িয়ে দিলেন ‘দানবীয়’ ফাস্ট বোলার ডেভন ম্যালকম!

কেনিয়ার ‘বিপ্লবী’ নেতা

সুপার সিক্সে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন, তখনকার প্রবল পরাক্রমশালী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আসিফ যা করেছিলেন, এককথায় অনবদ্যই বলতে হবে। ৮ ওভার বোলিংয়ের পর আসিফের ফিগার ছিল ৬ মেইডেন, ২ রান ও ৩ উইকেট! আসিফ সেদিন যা করেছিলেন, সেটা বিশ্বের শীর্ষ দলগুলোও…