বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন থেকে বিশ্ব-ফ্লপ

চির প্রতিদ্বন্দ্বী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে হারের পর বিপদজ্জনক অবস্থানে ইংল্যান্ড।

চির প্রতিদ্বন্দ্বী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে হারের পর বিপদজ্জনক অবস্থানে ইংল্যান্ড। কোচ ম্যাথিউ মট আর অধিনায়ক জশ বাটলার আটকে গিয়েছেন গাণিতিক গ্যাঁড়াকলে। পরবর্তী ম্যাচগুলো জয়ের কোনো বিকল্প নেই তাঁদের সামনে।

টসে জিতে অস্ট্রেলিয়াকে ব্যাটিংয়ে পাঠানোর মাশুল হিসেবে বাটলাররা পেয়েছেন পরাজয়ের লজ্জা। অস্ট্রেলিয়া ৩৬ রানে সেই ম্যাচ জিতে নেয়। তবে ধীরে ধীরে স্পষ্ট হতে শুরু করেছে ইংল্যান্ডের কোচ-অধিনায়কের ভুল সিদ্ধান্তগুলো। প্রথম পাঁচ ওভারেই ৭০ রান তুলে নেয় ডেভিড ওয়ার্নার-ট্রাভিস হেডরা। ইংল্যান্ডের পার্ট টাইম বোলার উইল জ্যাকসের এক ওভারেই তাঁরা তুলে নেয় ২২ রান, যেখানে ছিল তিনটি ছক্কার মার।

জোফরা আর্চার, যিনি ওয়ার্নারকে নয় বার উনিশতম ওভারে আউট করেছেন। তিনি ডিপ অঞ্চলে দাঁড়িয়ে তাঁর বোলিংয়ের জন্য অপেক্ষা করছিলেন। তবে বাটলার তাঁদের ইনিংস শুরু করেন মঈন আলিএবং উইল জ্যাকসকে দিয়ে। মঈন কিছুটা ভালো বোলিং করলেও, জ্যাকসের এক ওভারেই খেই হারায় ইংল্যান্ড।

বাটলারের মতে, প্রথমবারের মত ইংল্যান্ডের ইনিংস দুইজন স্পিনারকে দিয়ে শুরু করাটা বেশ সাহসের ব্যাপার ছিল। তবে এ সবকিছুই যে ইংল্যান্ডের অতিরিক্ত ভাবনার ফলাফল, তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

রিস টপলিকে বাদ দেয়ার বিষয়েও ব্যাখ্যা দেন ইংল্যান্ডের এই অধিনায়ক। যেখানে পেস বোলারদের বিপক্ষে  তিনি বাঁ-হাতি ব্যাটারদের গড়ের কথা উল্লেখ করেন। সংখ্যার হিসেবে তা ১৯.৮ এবং যা গত বিশ্বকাপ থেকে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ অবস্থানে আছে।

তবে টপলির অনুপস্থিতি অনুভব করা যায় মার্ক উডের বোলিংয়ে। তিনি দুইটি ফুল টস দেয়ার মাধ্যমে তাঁর বোলিং শুরু করেন। দল ঘোষণার সময় ইংল্যান্ডের পুরুষ ক্রিকেটের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক রব কী কোচ এবং অধিনায়ককে প্রতিনিয়ত টপলির গুরুত্ব বোঝানোর চেষ্টা করেছিলেন। তিনি আর্চারকে দিয়ে বোলিং শুরু করার কথা বলেছিলেন।

এই ম্যাচ নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার বোলার অ্যাডাম জাম্পা বলেন, ‘আমার মনে হয় তাঁরা খানিকটা দ্বিধায় পড়ে গিয়েছিল, যার প্রমাণ মাঠে লক্ষ্য করা যায়। তবে আমাদের নেতৃত্বে তেমনটা দেখা যায় না, তাঁরা বেশ শান্ত মানসিকতার।’

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ফলাফলহীন ম্যাচ এবং অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পরাজয় ইংল্যান্ডকে কঠিন সমীকরণে ফেলেছে। তার ওপর টানা দুই ম্যাচে জয় আর রান রেটের দাপটে উড়ছে স্কটল্যান্ড। মট এবং বাটলারের তাই এখন পিছনে তাকানোর কোনো সুযোগ নেই। যদি আগামী ম্যাচগুলো তাঁদের পক্ষে না যায় আসে, তবে তাঁদের বিশ্বকাপ যাত্রার ইতি ঘটতে পারে।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

আরও পড়ুন
মন্তব্যসমূহ
Loading...