ওজনদার ব্যাটের গল্প

বলা হয়, এখনকার ক্রিকেট হলো ব্যাটসম্যানদের খেলা। সবসময় এই ঘটনা ঘটে না। ক্রিকেট ব্যাটসম্যানদের খেলাতে পরিণত হবার সবচেয়ে বড় নিয়ামক হলো ব্যাট। বৈজ্ঞানিকভাবে তৈরি আধুনিককালের ব্যাটের তুলনায় আগের ব্যাট ভারি ছিলো।

বলা হয়, এখনকার ক্রিকেট হলো ব্যাটসম্যানদের খেলা। সবসময় এই ঘটনা ঘটে না। ক্রিকেট ব্যাটসম্যানদের খেলাতে পরিণত হবার সবচেয়ে বড় নিয়ামক হলো ব্যাট। বৈজ্ঞানিকভাবে তৈরি আধুনিককালের ব্যাটের তুলনায় আগের ব্যাট ভারি ছিলো।

তবে এই ব্যাপারটা সবার ক্ষেত্রে সত্যি নয়। আধুনিককালের কিছু ব্যাটসম্যান আছেন বা ছিলেন, যারা তুলনামূলকভাবে ভারি ব্যাট ব্যবহার করেন। এইসব ব্যাটসম্যানের তালিকায় আছেন এমন অনেক তারকা ক্রিকেটার যাদের খেলা দেখে আমরা সবচেয়ে বেশি বিনোদন পাই।

  • শচীন টেন্ডুলকার (ভারত)

এই ক্রিকেট গ্রেট ব্যবহার করতেন অ্যাডিডাস কোম্পানির ব্যাট। তার ব্যাটের নাম ছিলো মাস্টার ব্লাস্টার।

শচীনের ব্যাটের ওজন ছিলো  ১.৪৭  কেজি।  শচীন ছিলেন একজন ব্যতিক্রমধর্মী ব্যাটসম্যান, যিনি কিনা ব্যবহার করতেন স্বাভাবিকের তুলনায় ভারী ব্যাট। ছোটোখাটো শারীরিক গঠনের পরও তিনি যে ভাবে ব্যাট নড়াচড়া করতেন তা সত্যিই অবাক করার বিষয়।  ২০১০  সালের অক্টোবরে এক নিলামে শচীনের ব্যাটের দাম উঠে ছিলো  ৪২  লাখ রুপি।

  • আন্দ্রে রাসেল (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)

বর্তমান সময়ের মারকুটে একজন অলরাউন্ডাদের মধ্যে একজন আন্দ্রে রাসেল। তিনি দ্যা স্পার্টান কোম্পানির ব্যাট বব্যহার করেন।  তার ব্যাটের নাম ড্রি রুস। তিনি যে ব্যাট বব্যহার করেন তার ওজন  ১.২  কেজি।

রাসেল সাম্প্রতিক সময়ে নিজেকে একজন মারকুটে ব্যাটসম্যান হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন।  তিনি তার স্পার্টান ড্রি রুস ব্যাট দিয়ে অনেক ম্যাচের ভাগ্য বদলে দিয়েছেন।  রাসেল তার জাতীয় দল সতীর্থ ক্রিস গেইলের পরামর্শে ভারী ব্যাট ব্যবহার করা শুরু করেন। এরপর থেকে তাকে আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি।  ভারী ব্যাট দিয়েই ব্যাট হাতে সফল হচ্ছেন আন্দ্রে রাসেল।

  • ক্রিস গেইল (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)

টি-টুয়েন্টির ফেরিওয়ালা ক্রিস গেইলও ব্যবহার করেন দ্যা স্পার্টান কোম্পানির ব্যাট। তার ব্যাটের নাম সিজি দ্যা বস। গেইলের ব্যাটের ওজন  ১.৩৬  কেজি।

গেইলের ব্যাট এতো ভারী হবে এটা কখনো বিস্ময়কর ছিলোনা। তার দৈহিক গঠনের কারণে তিনি ভরী ব্যাট ব্যবহার করে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবেন এটাই স্বাভাবিক। গেইলের বাট ঘুরানোর কথা চিন্তা করেই গেইলের ব্যাটের নকশা করা হয়েছে। পেশি শক্তির ব্যবহার করে এই ব্যাটের মাধ্যমেই বড় বড় ছক্কা হাঁকান তিনি।

  • ল্যান্স ক্লুজনার (দক্ষিণ আফ্রিকা)

ল্যান্স ক্লুজনার এবং তার ব্যাট উভয়েরই ডাক নাম এস এস জুলু। এই তালিকায় সবচেয়ে ভারী ব্যাট ব্যবহার করতেন ক্লুজনার । সম্ভবত এস এস জুলু এখন পর্যন্ত সবচেয়ে ভারী ব্যাট নির্মান করেছে।

ধারণা করা হয় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে ভারী ব্যাট ব্যবহার করেছেন এই প্রোটিয়া ব্যাটসম্যান। ১.৫৭ কেজি ছিলো তার ব্যাটের ওজন। অন্যান্য ব্যাটের তুলনায় এই ব্যাটের হাতল তুলনামূলক ছোটো হত।  যা বিপক্ষ দলের বোলারদের জন্য মাথাব্যথার কারণ ছিলো।

  • বীরেন্দ্র শেবাগ (ভারত)

স্যার ভিভ রিচার্ডসের পর আক্রমণাত্মক ব্যাটিং এর বিপ্লব শুরু করেন শেবাগ। তিনি ব্যবহার করতেন এসজি কোম্পানির ব্যাট।  তার ব্যাটের নাম ছিলো ভিএস  ৩১৯।

শেবাগের ব্যবহার করা ব্যাটের ওজন ছিলো  ১.৩৫ কেজি। তার আক্রমণাত্মক স্ট্রোক প্লে এবং মাঠের বাইরে বল বের করার জন্য কার্যকরী ছিলো ভারী ব্যাট।  শেবাগ তার জীবনের সেরা ইনিংস তথা তার ক্যারিয়ারের দুইটি ত্রিশতক হাঁকিয়েছেন ভিএস-৩১৯  ব্যাট দিয়ে।

আরও পড়ুন
মন্তব্যসমূহ
Loading...