সাকিবের পাশে ফারুক আহমেদ

'আপনি বলতে পারেন দেশের স্বার্থে খেলছেনা, বাইরে খেলছে। এটা অন্য একটা বিতর্ক। কিন্তু বোর্ড হয়তো অনেক কিছু চিন্তা করেছে। কেউ যদি মনযোগ দিয়ে খেলতে না চায়। দেখেন ও যদি আইপিএল চুক্তি মিস করে মন খারাপ করে তখন কিন্তু পুরো খেলোয়াড় হিসেবে ওকে পাবে না।

চোটের কারণে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে প্রথম টেস্টেই মাঠের বাইরে চলে যান সাকিব আল হাসান। এরপর সাকিব খেলতে পারেননি দ্বিতীয় টেস্টেও। সন্তানসম্ভাবনা স্ত্রীর পাশে থাকতে নিউজিল্যান্ড সফরেও যাচ্ছেন না এই অলরাউন্ডার। এবার সাকিব আইপিএল খেলার জন্য থাকবেন না শ্রীলংকা সিরিজেও।

আইপিএল খেলার জন্য শ্রীলংকা সিরিজ থেকে ছুটি চাওয়ার পরই ছুটি মঞ্জুর করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। এরপর থেকেই চারদিকে চলছে সাকিবের সমালোচোনা। তবে সাকিবের এই ছুটি ব্যাপারে তাকে উৎসাহ না দিয়ে সাকিবের পাশে দাঁড়িয়েছেন জাতীয় দলের সাবেক প্রধান নির্বাচক ফারুক আহমেদ।

ফারুক আহমেদ মনে করেন সাকিবকে ছুটি না দিয়ে জোর করে খেলালে হিতে বিপরীত হতে পারতো। তাই সব কিছু বিশ্লেষণ করেই ছুটি দিয়েছে বোর্ড। কক্সবাজারে চলতি লিজেন্ড চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে নারায়ণগঞ্জ ওয়ারিয়র্সের মেন্টর ফারুক আহমেদ উপস্থিত সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘আপনি বলতে পারেন দেশের স্বার্থে খেলছেনা, বাইরে খেলছে। এটা অন্য একটা বিতর্ক। কিন্তু বোর্ড হয়তো অনেক কিছু চিন্তা করেছে। কেউ যদি মনযোগ দিয়ে খেলতে না চায়। দেখেন ও যদি আইপিএল চুক্তি মিস করে মন খারাপ করে তখন কিন্তু পুরো খেলোয়াড় হিসেবে ওকে পাবে না। এটা হয়তো বোর্ড ভারসাম্য করার চেষ্টা করেছে। হয়তো ভেবেছে টেস্ট দুইটা না খেললেও চলবে।

তবে শ্রীলংকা বিপক্ষে টেস্ট সিরিজের থেকে আসন্ন নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজে সাকিবকে বেশী মিস করবেন সাবেক এই প্রধান নির্বাচক। তিনি জানিয়েছেন নিউজিল্যান্ডেই সাকিবের প্রয়োজনটা বেশী ছিলো বাংলাদেশের।

ফারুক বলেন, ‘সাকিবকে আমরা নিউজিল্যান্ডে পাচ্ছিনা, আবার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজেও পাচ্ছিনা। আমার মনে হয় নিউজিল্যান্ডে ওকে আমাদের বেশি দরকার ছিল। যেটা আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি। কোনভাবে যদি সে নিউজিল্যান্ড সফরটা করতে পারতো আমাদের দলের জন্য শক্তিমত্তা বৃদ্ধির দিক থেকে অনেক অনেক শক্ত হত। ফরম্যাটটা তাকে স্যুট করে। ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি। কিন্তু নিউজিল্যান্ডে আমি ওকে ব্যক্তিগতভাবে বেশি মিস করবো।’

তিনি আরো বলেন, ‘দুইটা ব্যাপার আছে, এক বছরের বেশি সময়ের একটা বিরতি ছিল তার এবং প্রথম টেস্টেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে চোটে পড়ে টেস্ট সিরিজটি শেষ করতে পারেনি। আমার মনে হয় এখান থেকে ও ফিটনেসে আরেকটু কাজ করে।

আইপিএল আসার পর আইপিএলে খেলার জন্য জাতীয় দলকে বিবেচনার বাইরে রেখেছে অনেক ক্রিকেটার। এমনকি আইপিএল খেলার জন্য আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরও নিয়েছেন অনেকে। ফারুক  জানিয়েছেন এরকম ঘঠনা এবারই প্রথম নয়।

তিনি বলেন, ‘আর টি-টোয়েন্টিতে ব্যাপারটা অন্যরকম, শুধু ম্যাচ খেলে আসা যায়। সারা পৃথিবীতেই যদি দেখেন অনেক প্লেয়ার আছে যারা আইপিএল আসার পর অবসরে চলে গেছে। মানে তাদের দেশের হয়ে খেলার থেকে। এটাকে আমি উৎসাহী করছি না। কিন্তু এটা কিন্তু হয়েছে নতুন না।’

আরও পড়ুন

Leave A Reply

Your email address will not be published.