আইপিএলে মেইডেন জাদুকর

টি-টোয়েন্টিতে মেইডেন ওভার করাটা বোধহয় সবচেয়ে কঠিন কাজ। আর সেটা যদি হয় ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) মতো মারকাটারি আসরে তাহলে অবশ্যই বোলারের প্রশংসা করতেই হয়। টি-টোয়েন্টি বরাবরই ব্যাটসম্যানদের খেলা হলেও বোলাররাও কম যান না নিজেদের দিনে।

টি-টোয়েন্টিতে মেইডেন ওভার করাটা বোধহয় সবচেয়ে কঠিন কাজ। আর সেটা যদি হয় ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) মতো মারকাটারি আসরে তাহলে অবশ্যই বোলারের প্রশংসা করতেই হয়। টি-টোয়েন্টি বরাবরই ব্যাটসম্যানদের খেলা হলেও বোলাররাও কম যান না নিজেদের দিনে।

ভারি ব্যাট আর বাউন্ডারির দৈর্ঘ্য ছোট হওয়ায় এখন আর ব্যাটসম্যানরা টাইমিংয়ের ধার ধারেন না, অনেক সময় ব্যাটের কানায় লেগেও বাউন্ডারি হয়ে যায়। টানা সঠিক লাইন-লেংথে বল করা গেলেই কেবল ব্যাটসম্যানকে এক প্রান্তে আটকে রাখা সম্ভব। চলুন, আজকে দেখে আসি সেইসব বোলারদের যারা কিনা আইপিএলের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশিবার মেইডেন ওভার করেছেন।

  • ধাওয়াল কুলকার্নি: ৮ টি

ভারতের হয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে খুব বেশি ম্যাচ না খেললেও ধাওয়াল কুলকার্নি আইপিএলের নিয়মিত মুখ।বেশিরভাগ সময়ই নতুন বল হাতে নেন এবং গুড লেংথে সুইং আদায় করেন। তার বেশিরভাগ উইকেটই শুরুর পাওয়ারপ্লেতে এবং তিনিই একমাত্র পেসার যিনি কিনা প্রতিটি আইপিএল আসরে কমপক্ষে এক ওভার বল করেছেন।

কুলকার্নি এখন পর্যন্ত ৯২ টি আইপিএল ম্যাচ খেলে ৮৬ টি উইকেট পেয়েছেন,৮.৩০ ইকোনমিতে। তিনি আইপিএলে মোট আটটি মেইডেন ওভার করেন যা কিনা আইপিএল ইতিহাসের পঞ্চম সর্বোচ্চ। এই সিজনে তিনি মুম্বাইয়ের হয়ে একটি ম্যাচে মাঠে নামেন এবং ম্যাচের শেষভাগে বেশ ভালো বল করেন।

  • সন্দ্বীপ শর্মা: ৮ টি

অনুর্ধ্ব-১৯ জাতীয় দল থেকে উঠে আসা সন্দ্বীপ শর্মা ২০১৩ মৌসুমে প্রথমবারের মতো আইপিএলে ডাক পান কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের হয়ে খেলার জন্য। সেবার দারুণ এক মৌসুম কাটান। ফলশ্রুতিতে ২০১৫ সালে ভারত জাতীয় দলের হয়ে ডাক পান কিন্তু দুই ম্যাচ খেলেই বাদ পড়েন। একবার ছিটকে যাবার পর তিনি আর জাতীয় দলে ডাক পাননি।

ক্রিস গেইল এবং বিরাট কোহলির মতো ব্যাটসম্যানদের কাছে সন্দ্বীপ শর্মা এক আতঙ্কের নাম। আইপিএলে বেশ কয়েকবার  তিনি এই দুজনকে আউট করেন। নতুন বলে দুর্দান্ত সুইং করাতে পারেন তিনি। বর্তমানে তিনি খেলছেন সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের হয়ে। আইপিএলে ৯৫টি ম্যাচে উইকেট নিয়েছেন ১১০টি। তার ইকোনমিও ঈর্ষণীয়,মাত্র ৭.৭৯। তিনিও আইপিএলে করেছেন আটটি মেইডেন।

  • লাসিথ মালিঙ্গা: ৮ টি

আইপিএল ইতিহাসের অন্যতম সেরা বোলার লাসিথ মালিঙ্গা এবং আইপিএল ইতিহাসের সর্বোচ্চ উইকেটশিকারিও তিনি। এই শ্রীলঙ্কান কিংবদন্তি ১২২টি আইপিএল ম্যাচ খেলে ১৭০টি উইকেট শিকার করেন। তাঁর ইকোনমি রেট মাত্র ৭.১৪! তিনি দুর্দান্ত ইয়র্কারের জন্য বিখ্যাত হয়ে আছেন ক্রিকেটপ্রেমীদের মাঝে।

মালিঙ্গা সবসময় মূলত ডেথ ওভারে বোলিং করেন এবং অধিনায়কদের কাছে উইকেটশিকারী বোলার হিসেবেই স্বীকৃত। তার স্লিঙ্গিং অ্যাকশনে করা তীব্র গতির বল ব্যাটসম্যানদের কাছে সবসময়ই বিভীষিকা। ২০১৯ সালে তিনি আইপিএল থেকে অবসর নেন। ২০১৯ সালের ফাইনালের শেষ বলে নেয়া তার উইকেটের ফলেই মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স শিরোপা জিতে নেয়। তিনি আইপিএলে আটটি মেইডেন ওভার করেন।

  • ইরফান পাঠান: ১০ টি

ইরফান পাঠান প্রথম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জয়ী ভারতীয় দলের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য ছিলেন। তিনি আইপিএলে বেশ কয়েকটি ফ্যাঞ্চাইজি দলের হয়ে খেলেন এবং বেশিরভাগ সময়ই পাওয়ারপ্লেতে বল করতেন। তিনি দুর্দান্ত ইনসুইঙ্গার করতে পারতেন।

২০১৭ সালে রাইজিং পুনে সুপারজায়ান্টসের হয়ে খেলে তিনি অবসর নেন। ১০৩ টি আইপিএল ম্যাচ খেলে ৮০ টি উইকেট তুলে নেন ৭.৭৭ ইকোনমিতে।লোয়ার মিডল অর্ডারে নেমে ব্যাটিংয়ে ঝড় তুলতেও সিদ্ধহস্ত ছিলেন তিনি।তিনি আইপিএলে দশটি মেইডেন ওভার করেন।

  • প্রবীণ কুমার: ১৪ টি

প্রবীণ কুমার ভারতের অন্যতম সেরা সুইং বোলার হিসেবে খ্যাত। তিনি দুই দিকেই বলকে সুইং করাতে পারতেন। ৩৪ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার ২০১৭ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন ফ্যাঞ্চাইজি দলের হয়ে আইপিএল খেলেন। ক্যারিয়ারেই বেশিরভাগ সময়েই তাঁকে গুরুত্বপূর্ণ ওভারগুলোতে বল করতে হয়েছে।

ভারতীয় জাতীয় দল থেকে বাদ পড়ার পর তিনি অফ ফর্মে চলে যান এবং ২০১৮ সালে অবসর নেন। তিনি ১১৯টি আইপিএল ম্যাচ খেলে ৯০টি উইকেট নেন ৭.৭২ ইকোনমি বজায় রেখে।শেষ দিকে নেমে ব্যাটও চালাতে পারতেন ভালোই প্রবীণ কুমার। তিনি আইপিএলে ১৪টি মেইডেন ওভার করেন যা কিনা এখনো পর্যন্ত আইপিএল ইতিহাসে সর্বোচ্চ।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

আরও পড়ুন
মন্তব্যসমূহ
Loading...