পাকিস্তান থেকে ভিনদেশে

ইমরান খানদের প্রজন্ম থেকে শুরু করে পাকিস্তান আজ অবধি তৈরি করেছে অনেক আন্তর্জাতিক মানের ক্রিকেটার। এছাড়া পাকিস্তানে জন্ম নেয়া একটা বালক যখন ব্যাট-বল হাতে ছুটে বেড়ায় সেও নিশ্চয়ই স্বপ্ন দেখে একদিন এই দেশটার হয়ে খেলবে। তবে এমন ক্রিকেটারদেরও পাকিস্তান জন্ম দিয়েছে যারা পরবর্তীকালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলেছেন অন্য কোনো দেশের হয়ে।

বিশ্বক্রিকেটের অন্যতম পরাশক্তি পাকিস্তান। সেই ১৯৯২ এর বিশ্বকাপ জয়ী পাকিস্তান থেকে ২০১৭ এর চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জয় করা পাকিস্তান এক ক্রিকেটীয় ইতিহাসের নাম। কোনো পরিস্থিতিতেই কিংবা বিশ্বের কোনো আসরেই পাকিস্তানকে আপনি এড়িয়ে যেতে পারবেন না।

ইমরান খানদের প্রজন্ম থেকে শুরু করে পাকিস্তান আজ অবধি তৈরি করেছে অনেক আন্তর্জাতিক মানের ক্রিকেটার। এছাড়া পাকিস্তানে জন্ম নেয়া একটা বালক যখন ব্যাট-বল হাতে ছুটে বেড়ায় সেও নিশ্চয়ই স্বপ্ন দেখে একদিন এই দেশটার হয়ে খেলবে। তবে এমন ক্রিকেটারদেরও পাকিস্তান জন্ম দিয়েছে যারা পরবর্তীকালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলেছেন অন্য কোনো দেশের হয়ে।

  • শাইমান আনোয়ার (সংযুক্ত আরব আমিরাত)

সংযুক্ত আরব আমিরাতের ব্যাটিং লাইন আপের সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান তিনি। ২০১৫ ওয়ানডে বিশ্বকাপে দেশটির হয়ে ধারাবাহিক ভাবে রান করে গেছেন শাইমান আনোয়ার। এছাড়া বিভিন্ন টি-টোয়েন্টি লিগেও নিয়মিত খেলে বেড়ান এই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান। তবে অবাক করা বিষয় হচ্ছে এই ব্যাটসম্যানের জন্ম আসলে পাকিস্তানের শিয়ালকোটে।

  • ফাওয়াদ আহমেদ (অস্ট্রেলিয়া)

পাকিস্তানের মারঘুজে জন্ম নেয়া এই লেগ স্পিনার আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলেছেন অস্ট্রেলিয়ার হয়ে। দেশটির হয়ে এখন পর্যন্ত তিনি ৩টি ওয়ানডে ও ২টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন। যদিও অস্ট্রেলিয়া লেগ স্পিনার হিসেবে ফাওয়াদের থেকে অ্যাডাম জম্পাকেই বেশি পছন্দ করে। তবে বিভিন্ন ফ্র্যাঞ্চাইজি টি-টোয়েন্টি লিগে খেলে ইতোমধ্যেই সুনাম কুড়াচ্ছেন এই লেগি।

  • ইমরান তাহির (দক্ষিণ আফ্রিকা)

তালিকার সবচেয়ে বড় নাম দক্ষিণ আফ্রিকার এই লেগ স্পিনার। ২০১১ সালের বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে অভিষিক্ত হন তিনি। দেশটির হয়ে তিনি ২০ টি টেস্ট, ১০৭ টি ওয়ানডে ও ৩৮ টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন। তবে এই লেগির জন্ম হয়েছিল পাকিস্তানের লাহোরে। পাকিস্তানে ঘরোয়া ক্রিকেটও খেলেছেন।

  • সিকান্দার রাজা (জিম্বাবুয়ে)

পাকিস্তানে জন্ম নেয়া এই ক্রিকেটার নিয়মিত আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলেন জিম্বাবুয়ের হয়ে। ৩৪ বছর বয়সী এই অলরাউন্ডারের জন্ম পাকিস্তানের শিয়ালকোটে। এক সময় ছিলেন পাইলট। জিম্বাবুয়ের হয়ে তিনি ১৬ টি টেস্ট, ১০৩ টি ওয়ানডে ও ৩৬ টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন। পাকিস্তানে জন্ম নেয়া এই ক্রিকেটার এখন জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটের বড় সম্পদ।

  • ওয়াইজ শাহ (ইংল্যান্ড)

সাবেক ইংলিশ মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান। তাঁর জন্ম হয় করাচিতে, ১৯৭৮ সারে ২২ অক্টোবর। যদিও, তিনি ইংল্যান্ডের হয়ে ছয়টি টেস্ট, ৭১ টি ওয়ানডে ও ১৭ টি টি-টোয়েন্টি খেলেছেন। ব্রিটিশ পাসপোর্ট থাকায় ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) দু’টি আসর খেলেছেন কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে। তিনি কাউন্টি ক্রিকেটে লম্বা সময় খেলেছেন হ্যাম্পশায়ারের হয়ে।

  • উসমান খাজা (অস্ট্রেলিয়া)

অনেকের মতেই এই মুহূর্তে বিশ্ব ক্রিকেটের অন্যতম সেরা ওপেনার তিনি। যদিও বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিজের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে পারেননি। অস্ট্রেলিয়া দলে তাই সব সময় জায়গাটা পাঁকা থাকে না। অস্ট্রেলিয়ার হয়ে এখন পর্যন্ত ৪৪ টি টেস্ট,৪০ টি ওয়ানডে ও নয়টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন এই ক্রিকেটার। ৪০ টি ওয়ানডে ম্যাচে প্রায় ৪২ গড়ে করেছেন ১৫৫৪ রান। তবে এই ওপেনারের জন্ম হয়েছিল পাকিস্তানে ইসলামাবাদে।

 

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

আরও পড়ুন
মন্তব্যসমূহ
Loading...